• English
  • আজ ১৯শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

যুক্তরাষ্ট্রে একদিনে আক্রান্ত-মৃত্যুর রেকর্ড

২:০২ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১৭, ২০২০ আন্তর্জাতিক

বিশ্বে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের প্রায় এক বছর হয়ে গেল। লাখ লাখ মানুষের প্রাণ কেড়েও ক্ষান্ত হয়নি এই ভাইরাস। এখন পর্যন্ত বিশ্বের ২১৮টি দেশ ও অঞ্চলে এই ভাইরাসের প্রকোপ ছড়িয়ে পড়েছে। তবে করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বিপর্যস্ত যুক্তরাষ্ট্র।

গত কয়েক সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্ত ও মৃত্যু লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছেই। এর মধ্যেই গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটি সংক্রমণ ও মৃত্যুর নতুন রেকর্ড গড়েছে। জন্স হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, দেশটিতে একদিনেই নতুন করে আরও ৩ হাজার ৭শ জনের মৃত্যু হয়েছে। অপরদিকে মারা গেছে আরও আড়াই লাখের বেশি মানুষ।

নতুন করে আরও কয়েক হাজার মানুষের মৃত্যুতে যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ৭ হাজার ২৯১। স্বাস্থ্য ও মানবসেবা বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, এক মাসের বেশি সময় ধরেই দেশটিতে সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি লক্ষ্য করা গেছে। এছাড়া বর্তমানে আরও প্রায় ১ লাখ ১৩ হাজার মানুষ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে।

বিশ্বের বাকি দেশগুলোর তুলনায় যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্ত ও মৃত্যু অনেক বেশি। ওয়ার্ল্ডোমিটারের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, দেশটিতে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ১ কোটি ৭৩ লাখ ৯২ হাজার ৬১৮। এর মধ্যে মারা গেছে ৩ লাখ ১৪ হাজার ৫৭৭ জন। ইতোমধ্যেই সুস্থ হয়ে উঠেছে ১ কোটি ১ লাখ ৭০ হাজার ৭৩৫ জন। দেশটিতে বর্তমানে করোনার অ্যাক্টিভ কেস ৬৯ লাখ ৭ হাজার ৩০৬। অপরদিকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় রয়েছে ২৮ হাজার ৩২৫ জন।

তবে এর মধ্যেও আশার কথা হচ্ছে দেশটিতে ইতোমধ্যেই ভ্যাকসিন কার্যক্রম শুরু হয়ে গেছে। চলতি সপ্তাহে মার্কিন ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি ফাইজার এবং তাদের জার্মান অংশীদার বায়োএনটেকের তৈরি ভ্যাকসিনের ২৯ লাখ ডোজ প্রদানের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

চলতি মাসে ওয়াশিংটনের হেলথ মেট্রিকস অ্যান্ড ইভালুয়েশন ইন্সটিটিউট আশঙ্কা প্রকাশ করে জানিয়েছে যে, মাস্ক পরিধান এবং সামাজিক দূরত্ব সঠিকভাবে মেনে চলা না হলে আগামী মার্চের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা প্রায় সাড়ে চার লাখে পৌঁছাতে পারে।

এদিকে, বুধবার হোয়াইট হাউসের পক্ষ থেকে এক ঘোষণায় জানানো হয়েছে যে, মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স এবং তার স্ত্রী ক্যারেন আগামী শুক্রবার একটি অনুষ্ঠানে জনসম্মুখে ভ্যাকসিন গ্রহণ করবেন। শুক্রবার সার্জন জেনারেল জেরোমি অ্যাডামসেরও ভ্যাকসিন গ্রহণ করার কথা।

রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, আগামী সপ্তাহের মধ্যে নব-নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনও করোনা ভ্যাকসিন গ্রহণ করতে পারেন। মঙ্গলবার এক ‍বিবৃতিতে বাইডেন জানান, জাতীয় সংক্রামক রোগের শীর্ষ বিশেষজ্ঞ ডা. অ্যান্থনি ফাউসি তাকে যত দ্রুত সম্ভব ভ্যাকসিন গ্রহণের পরামর্শ দিয়েছেন।

বাইডেন জানিয়েছেন, তিনি চান সম্মুখ সারির স্বাস্থ্যকর্মী এবং করোনার ঝুঁকিতে থাকা লোকজন আগে ভ্যাকসিন গ্রহণ করুক। বর্তমানে তার বয়স ৭৮ বছর। বয়সের কারণে তিনি নিজেও করোনার ঝুঁকিতে রয়েছেন।